ফণ্ট ডাউনলোড
নীড় প্রকাশনা দৃশ্য-শ্রাব্য প্রকাশনা তিন প্রহরের রাগ

তিন প্রহরের রাগ

প্রকাশকাল: ১১ মাঘ ১৪২১, ২৪ জানুয়ারি ২০১৫
ধরণ: ধ্বনিমুদ্রিকা, শুদ্ধসঙ্গীত
CD_TPR

শুদ্ধসঙ্গীতের ধ্বনিমুদ্রিকা

প্রাচীন কাল থেকেই ভারতবর্ষের সংস্কৃতিতে একটি দিনকে আটটি ভাগে ভাগ করা হয়ে আসছে। প্রহর নামে চিহ্নিত করা হচ্ছে তিন ঘণ্টার প্রতিটি ভাগকে। দিন শুরু হয় ভোর ৬টা থেকে। সঙ্গীতজগৎও সেই ধারার অনুসারী। গানের মেজাজ অনুযায়ী সঙ্গীতগুরুরা বিভিন্ন সময়ের পরিবেশ-প্রতিবেশের উপযোগী করে দেখে আসছেন প্রতিটি রাগকে। প্রহর অনুযায়ী হয়েছে রাগবিন্যাস। চলন অনুযায়ী বিশেষ বিশেষ প্রহরের রাগ হিসেবেই বিশিষ্ট বা পরিচিত আমাদের শুদ্ধসঙ্গীত। উল্লেখ করা যেতে পারে, কিছু কিছু রাগ দিবারাত্রির সন্ধিক্ষণের উপযোগী বলে অনুভূত হওয়ায় সেগুলোকে সন্ধি-প্রকাশ রাগ নামে চিহ্নিত করা হয়েছে।

ছায়ানটের এই ধ্বনিমুদ্রিকায় উপস্থাপন করা হয়েছে তিন প্রহরের তিনটি রাগ।

দিবা দ্বিতীয় প্রহরে পরিবেশনযোগ্য শান্ত সুন্দর প্রকৃতির রাগ গুর্জরী টোড়ি। চলন টোড়ির খুব কাছের, তবে এই রাগ পঞ্চম বর্জিত।

দিবা অন্তিম প্রহরের আবেগঘন ভালবাসামণ্ডিত নান্দনিক রাগ মধুবন্তী। এর কাছের রাগ মুলতানী।

শ্রুতিমধুর বহুলপ্রচলিত বেহাগ রাগ পরিবেশনের সময় রাত্রি দ্বিতীয় প্রহর। এর সঙ্গে মারুবেহাগ ও বেহাগড়ার মিল পাওয়া যায়।

 

প্রকাশনা সহযোগী: গ্রামীণফোন

 

সূচি:

১. রেজোয়ান আলী, রাগ – গুর্জরী টোড়ি
২. প্রিয়াংকা গোপ, রাগ – মধুবন্তী
৩. অসিত দে,রাগ – বেহাগ




বাংলাদেশের হৃদয় হতে সংগ্রহ